বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:৫২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
অতি বৃষ্টিতে মুকসুদপুরে পিঁয়াজের বীজতলার ব্যাপক ক্ষতি নগরকান্দায় পানিতে ডুবে দুই ভাইয়ের মৃত্যু মুকসুদপুরে বেড়েই চলছে মোবাইল চুরি ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাব নগরকান্দায় দুইদিনের বৃষ্টিতে পিঁয়াজের বীজতলার ব্যাপক ক্ষতি ধর্মীয় অনুষ্ঠানের ‘কর্তৃত্ব’ নিয়ে সংঘর্ষ, আহত ১০ মুকসুদপুরে ইজিবাইকের চাকায় ওড়না পেচিয়ে স্কুল শিক্ষিকার মৃত্যু মহারাজপুরে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানকে বরণ করতে হাজারো মানুষের ঢল মুকসুদপুরে ১৬ ইউনিয়নের ১৩ টিতে নৌকার বিজয় ১ টিতে বিদ্রোহী ২ টিতে স্বতন্ত্র জয়ী মুকসুদপুরের ১৬ ইউপিতে শান্তিপূর্ন পরিবেশে চলছে ভোটগ্রহণ মুকসুদপুরে ভোটারদের টাকা দিতে গিয়ে ধরা, গুনলেন জরিমানা
বিল নিয়ে খেদ হাসপাতালে ভর্তি তসলিমার

বিল নিয়ে খেদ হাসপাতালে ভর্তি তসলিমার

ফাইল ছবি

জ্বর আর পায়ে ফোঁড়া নিয়ে কলকাতার একটি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন বাংলাদেশের বিতর্কিত লেখিকা তসলিমা নাসরিন। চিকিৎসা শেষে তিনি হাসপাতাল থেকে বের হতে পারছেন না। কারণ চিকিৎসাবাবদ হাসপাতালের যে বিল উঠেছে তা তিনি পরিশোধ করলেই তাকে বের হতে দেয়া হবে। বিলের পরিমাণ ১ লাখ ৬৫ হাজার টাকা। এত ছোট রোগে এত বিল উঠবে তা তার ধারণার বাইরে ছিল।

এ বিষয়ে বুধবার তসলিমা নাসরিন তার ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। তাতে ফুটে উঠেছে কলকাতায় চিকিৎসা ব্যয়ের চিত্র। তবে তিনি হাসপাতালের নাম উল্লেখ করেননি তার স্ট্যাটাসে।

তার স্ট্যাটাসটি নিচে হুবুহু তুলে ধরা হলো- ‘পাঁচদিন পর হাসপাতাল থেকে বেরোতে চাইছি কিন্তু বেরোতে দেয়া হচ্ছে না। টাকা পুরো শোধ করলেই তবে বেরোতে পারব। টাকা কত? ১ লাখ ৬৫ হাজার। কী অসুখ হয়েছিল আমার? গায়ে জ্বর আর পায়ে ফোঁড়া। জ্বর কমাতে আর ফোঁড়া গালাতে খরচ যে এত, জানলে এ মুখো হতাম না। খুব যে দামি ক্লিনিকে এসেছি তা কিন্তু নয়।’

 

‘ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি সারাদিন দেখছি-ভাবছি, শেষে না করে দিল তারা পে করবে না। অসহায় মানুষটি চারদিকে হাতড়াচ্ছি। যত থলে রেখেছি এদিকে সেদিকে, ঝেড়ে ঝেড়ে দেখছি মুক্তি পেতে পারি কি না…। না এভাবে চলবে না। এরপর জ্বর হলে নিজেই জলপট্টি দেব, ফোঁড়া হলে নিজেই ফুটো করে পুঁজ-রক্ত বের করে নেব।’

তার এই স্ট্যাটাসের নিচে কমেন্টে পূরবী রায় নামের এক নারী লিখেছেন- অদ্ভুত! জ্বর আর ফোঁড়ার জন্য এত টাকা বিল। মাথাই নষ্ট।

ফারুক ভূঁইয়া রবিন নামে এক ব্যক্তি লিখেছেন, মুখরোচক ভাষায় বলা হয়ে থাকে ‘চিকিৎসা সেবা’। কিন্তু বাস্তবে সেবার নামে যা হয়ে থাকে, তাকে গলাকাটা ব্যবসা বললেও কম বলা হবে।

দেবাষিশ ঘোষ নামের আরেক ব্যক্তি লিখেছেন, সুপ্রিম কোর্টের নতুন নির্দেশিকা অনুসারে কাউকে বিল পে না করতে পারার জন্য আটকে রাখা যায় না। হাসপাতালের বিরুদ্ধে অবশ্যই আইনি ব্যবস্থা নেয়া যায়। তাড়াতাড়ি সুস্থ হয়ে উঠুন। আপনার পোস্ট না পেয়ে চিন্তায় ছিলাম। আর যদি এই অধমের কাছে কোনো সাহায্যের প্রয়োজন হয় তো বলবেন। কৃতজ্ঞ থাকব।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..




© All rights reserved 2018 Banglarnayan
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!