সোমবার, ২২ Jul ২০২৪, ০৭:১৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম:
মুকসুদপুরে মাতৃস্নেহ প্রতিবন্ধী ও যুব নারী উন্নয়ন সংস্থার নিবন্ধন পাওয়ায় আনন্দ উৎসব জিআই স্বীকৃতি পেল গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার জলিরপাড়ের ব্রোঞ্জের গহনা মুকসুদপুরে সাপের কামড়ে ১জনের মৃত্যু মুকসুদপুরে অনুমতি ছাড়াই চলছে চারকোল, স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে মানুষ মুকসুদপুরের উজানীতে কৃষক মাঠ দিবস পালিত মুকসুদপুরের খান্দারপাড়ায় বিদ্যুৎ স্পর্শে নিহত ১ মুকসুদপুরে চরম বিদ্যুৎ বিভ্রাট, জনজীবন অতিষ্ঠ গাছে কথা বলছে গুজবে ভাসছে মুকসুদপুর, কেটে ফেলা হলো সেই গাছ মুকসুদপুরে সিসিডিবি’র কৃষি উপকরণ ও চেক সহায়তা পেলেন ১২০ সদস্য মুকসুদপুরে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় জরুরী সাড়াদান বিষয়ক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত
গাছে কথা বলছে গুজবে ভাসছে মুকসুদপুর, কেটে ফেলা হলো সেই গাছ

গাছে কথা বলছে গুজবে ভাসছে মুকসুদপুর, কেটে ফেলা হলো সেই গাছ

বাংলার নয়ন সংবাদঃ

‘গাছে কথা বলছে’—এমন গুজব ছড়িয়ে পড়েছে গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার রাঘদি ইউনিয়ন গর্জিনা গ্রামে। এ ঘটনার পর থেকে কয়েকদিন গাছটি দেখতে ভিড় করছেন অসংখ্য মানুষ। গাছে কান পেতে কথা শোনার চেষ্টা করতে দেখা গেছে অনেককে।

জানাগেছে মুকসুদপুর উপজেলার গর্জিনা গ্রামের সৌদি প্রবাসী মোঃ সবুর মিয়ার রয়েছে একটি গাছের বাগান। এলাকাবাসীর তথ্যমতে, গত ১৪ জুন ওই বাগানের একটি গাছ কাটতে যায় স্থানীয় জুয়েল মোল্লার ছেলে নীরব (১০) সহ কয়েকজন শিশু। তারা ধারালো অস্ত্র দিয়ে গাছটির গায়ে আঘাত করার সাথে গাছটি কথা বলে ওঠে। এসময় ওই শিশুরা ভয় পেয়ে বাড়ি গিয়ে পরিবারের সদস্যদের বিষয়টি জানান। পরে বিষয়টি পুরো গ্রামে ছড়িয়ে পড়ে গাছে কথা বলার গুজব। অনেকের দাবি গাছের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করলে উত্তর দিচ্ছে গাছ।

স্থানীয় রাঘদি ইউনিয়নের মেম্বার সাদ্দাম হোসেন জানায় মানুষ গাছের গায়ে কান পেতে কথা শোনার চেষ্টা করেন। শুধু বড়রাই নয়, কথা শোনার চেষ্টা করে শিশুরাও। অনেক দর্শনার্থী গাছের কথা শুনতে পান দাবি করে এটি ‘অলৌকিক’ বলে আখ্যা দেন। তবে ওই গ্রামের লোকজনই শুনতে পারেন। উৎসুক কয়েক জন জানায় গাছে কান পেতে কিছু শুনতে পাননি।

এ বিষয়ে মুকসুদপুর থানা মসজিদের ইমামের সাথে আলাপ কালে তিনি বলেন ‘এ ধরনের ঘটনাকে ইসলাম সমর্থন করে না। তবে গাছের প্রান আছে কিন্তু কথা বলতে পারবে না।

বিষয়টি নিয়ে টেলিভিশন ও পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর সারা জেলায় গুজবটি ছড়িয়ে পড়ে। আজ ২২ জুন ওই গুজব গাছটিকে কেটে ফেলেন স্থানীরা।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..




© All rights reserved 2024 Banglarnayan
Design & Developed BY ThemesBazar.Com